বিকাশ ভবন স্কলারশিপ 2022 | স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ ২০২২ সম্পূর্ণ আবেদন পদ্ধতি

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ 2021

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ 2022: পশ্চিমবঙ্গ সরকারের একটি স্কলারশিপ হলো স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ বা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ। বিকাশ ভবন স্কলারশিপ ২০২২ -এর সম্পূর্ণ আবেদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে পারবেন আজকের এই প্রতিবেদনে। যেসব ছাত্র ছাত্রীরা মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক বা কলেজের পরীক্ষায় পাশ করে পরবর্তী ক্লাসে ভর্তি হয়েছেন তারা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ 2022 বা মেরিট কাম মিনস স্কলারশিপ 2022 -এ আবেদন করতে পারবেন। বিভিন্ন শিক্ষাগত যোগ্যতার নিরিখে এই স্কলারশিপে আবেদন করলে প্রতিমাসে ১০০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০০০ টাকা পর্যন্ত পাওয়া যাবে। Bikash Bhavan Scholarship or Merit Cum Means Scholarship Application Process.

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ 2022 (Bikash Bhavan Scholarship)

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ 2022
স্কলারশিপের নামবিকাশ ভবন স্কলারশিপ বা মেরিট কাম মিনস স্কলারশিপ
প্রদানকারী দপ্তরপশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিক্ষা দপ্তর
টাকার পরিমানপ্রতিমাসে ১০০০- ৫০০০ টাকা পর্যন্ত
আবেদন পদ্ধতিঅনলাইন
আবেদন শুরুNovember, 2022
আবেদন শেষFebruary, 2023
অফিশিয়াল ওয়েবসাইটsvmcm.wbhed.gov.in
হেল্পলাইন নম্বর১৮০০১০২৮০১৪

স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ 2022

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এর পোশাকি নাম স্বামী বিবেকানন্দ মেরিট কাম মিনস স্কলারশিপ (Swami Vivekananda Merit Cum Means Scholarship) বা SVMCM আজকের এই প্রতিবেদনে বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এ আবেদন করার জন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতা, সম্পূর্ণ আবেদন পদ্ধতি, কি কি ডকুমেন্টস লাগবে, কত টাকা পাওয়া যাবে, কবে থেকে আবেদন শুরু হবে সহ একাধিক তথ্য জানতে পারবেন।

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ আবেদনের যোগ্যতা

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ বা স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ আবেদন করার জন্য নিম্নলিখিত যোগ্যতা গুলি অবশ্যই থাকতে হবে।

১) এই স্কলারশিপ -এ আবেদন করার সময় ছাত্র-ছাত্রীদের মনে প্রথম যে প্রশ্নটা আসে সেটি হল মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক বা স্নাতক স্তরে কত শতাংশ নম্বর থাকতে হবে। তাই প্রথমেই শিক্ষাগত যোগ্যতার নম্বর নিয়ে আলোচনা করা হলো।

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ শিক্ষাগত যোগ্যতা
যে কোর্সে ভর্তি হয়েছেনসর্বনিম্ন নম্বর
উচ্চ মাধ্যমিক স্তরমাধ্যমিকে ৬০ শতাংশ নম্বর
স্নাতক স্তর (অনার্স/ নার্সিং/ প্যারামেডিক্যাল/ ইঞ্জিনিয়ারিং/ ডিপ্লোমা)উচ্চমাধ্যমিকে ৬০ শতাংশ নম্বর
স্নাতকোত্তর স্তর (পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন)গ্র্যাজুয়েশনে ৫৩ শতাংশ নম্বর
পলিটেকনিকমাধ্যমিক বা উচ্চমাধ্যমিকে ৬০ শতাংশ নম্বর

যেসব ছাত্র-ছাত্রীরা নির্দিষ্ট কোর্স গুলিতে অন্তত উপরে উল্লিখিত শতাংশ নিয়ে পাশ করেছেন তারা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

২) আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গের একজন স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
৩) আবেদনকারীর পারিবারিক বাৎসরিক আয় আড়াই লক্ষ (২.৫ লক্ষ) টাকার কম হতে হবে।
৪) যেসব ছাত্র ছাত্রীরা নবান্ন স্কলারশিপ বা উত্তরকন্যা স্কলারশিপ বা অন্য যেকোন সরকারি স্কলারশিপ -এ আবেদন করেছেন অথবা যেকোনো সরকারি স্কলারশিপ -এর সুবিধা ভোগ করছেন তারা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এর জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ টাকার পরিমান

শুধু বিকাশ ভবন স্কলারশিপ নয়, যেকোনো স্কলারশিপ -এ আবেদন করার আগেই ছাত্র- ছাত্রীদের মধ্যে প্রায়শই এই প্রশ্নটি দেখা দেয়, প্রশ্নটি হল ‘স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ -এ কত টাকা পাওয়া যায়’? স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ বা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ কোন যোগ্যতায় কত টাকা পাওয়া যায় তা নিচে দেওয়া হল-

উচ্চমাধ্যমিক স্তরপ্রতিমাসে ১০০০ টাকা
স্নাতক স্তরপ্রতিমাসে ১০০০- ৫০০০ টাকা পর্যন্ত
স্নাতকোত্তর স্তরপ্রতিমাসে ২০০০- ৫০০০ টাকা পর্যন্ত
পলিটেকনিকপ্রতিমাসে ১৫০০ টাকা

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ আবেদন পদ্ধতি

স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ বা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এ আবেদন করা যায় সরাসরি অনলাইনে। www.svmcm.wbhed.gov.in ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

১) প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীদের প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। রেজিস্ট্রেশন করার সময় আবেদনকারীর বর্তমান কোর্সের ওপর ভিত্তি করে ‘Directorate’ নির্বাচন করতে হবে। কোন কোর্সের জন্য কোন ‘Directorate’ নির্বাচন করতে হবে তা নিচে দেওয়া হল-

  • উচ্চমাধ্যমিক স্তর: Directorate of School Education (DSE)
  • স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তর: Directorate of Public Instruction (DPI
  • মেডিকেল কোর্স: Directorate of Medical Education (DME)
  • পলিটেকনিক কোর্স: Directorate of Technical Education and Training (DTE&T)
  • ইঞ্জিনিয়ারিং: Directorate of Technical Education (DTE)

২) ‘Directorate’ নির্বাচন করে আবেদনকারীর নাম, মোবাইল নম্বর, ইমেল আইডি সহ একাধিক তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া শেষ হওয়া মাত্রই কম্পিউটার স্ক্রিনে একটি ‘Application ID’ আসবে, যেটি পরবর্তীকালে স্কলারশিপের স্থিতি জানতে কাজে লাগবে।

৩) ‘Application ID’ ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। আবেদন করার সময় দেখে নিতে হবে সবকিছু সঠিকভাবে পূরণ করা হচ্ছে কিনা, কারণ আবেদন করার সময় কোন ভুল হয়ে গেলে পরবর্তীকালে স্কলারশিপের টাকা পেতে অসুবিধা হতে পারে।

প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ ২০২২ বা স্বামী বিবেকানন্দ মেরিট কাম মিনস স্কলারশিপ -এর অনলাইন আবেদন করার সময় যেসব ডকুমেন্টস গুলি আপলোড করতে হবে সেগুলি নিচে দেয়া হল-

১) জন্মের শংসাপত্র (মাধ্যমিকের এডমিট কার্ড)
২) শেষ পরীক্ষার মার্কশীট (মাধ্যমিক/ উচ্চমাধ্যমিক বা স্নাতক ইত্যাদি)
৩) শেষ পরীক্ষার এডমিট কার্ড
৪) পারিবারিক বার্ষিক আয়ের শংসাপত্র
৫) আবেদনকারীর আধার কার্ড/ ভোটার কার্ড/ রেশন কার্ড
৬) ব্যাংকের পাসবুক
৭) নতুন কোর্সে ভর্তির রশিদ

উপরোক্ত ডকুমেন্টস গুলি কে স্ক্যান করে পিডিএফ ফরমেটে আপলোড করতে হবে। এবং ডকুমেন্টস গুলির সাইজ 1 MB -এর বেশি হওয়া চলবে না।

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ হেল্পলাইন নম্বর

প্রতিবছর পশ্চিমবঙ্গের কয়েক লক্ষ ছাত্র ছাত্রী স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ বা বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এ আবেদন করে থাকেন। আবেদন করার সময় যে কোন অসুবিধা দূর করতে বিকাশ ভবনের একটি হেল্পলাইন নম্বর দেওয়া হয়েছে। অনলাইন আবেদন সংক্রান্ত যেকোন প্রশ্ন থাকলে এই নম্বরে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন। বিকাশ ভবন স্কলারশিপ হেল্পলাইন নম্বর- ১৮০০১০২৮০১৪, বিকাশ ভবন স্কলারশিপ ইমেল আইডি- [email protected]

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ Last date

প্রতিবছর বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এর আবেদন শুরু হয় অক্টোবর মাস থেকে। আশা করা যায় ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত আবেদন প্রক্রিয়া চলবে। অর্থাৎ বিকাশ ভবন স্কলারশিপ Last date (2022) হল ফেব্রুয়ারি, ২০২৩।

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ Apply Link

Official Notice: Download Now
Apply Now: Click Here

Nabanna Scholarship: Click Here

FAQ

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ ২০২২ কবে থেকে আবেদন শুরু হবে?

নভেম্বর মাস থেকে বিকাশ ভবন স্কলারশিপ -এর অনলাইন আবেদন শুরু হবে।

স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ -এ কত টাকা পাওয়া যায়?

বিভিন্ন শিক্ষাগত যোগ্যতার মান অনুযায়ী প্রতিমাসে ১০০০ থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত পাওয়া যায়।

বিকাশ ভবন হেল্পলাইন নম্বর কত?

18001028014

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ কীভাবে আবেদন করবো?

বিকাশ ভবন স্কলারশিপ অনলাইনে আবেদন করতে হবে। এই প্রতিবেদনে সম্পূর্ণ আবেদন প্রক্রিয়া আলোচনা করা হয়েছে।