বিগত আট বছরের মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বেড়ে ৬৭ শতাংশ, রিপোর্ট পেশ কেন্দ্রের! পড়ুন বিস্তারিত

বিগত আট বছরের মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বেড়ে ৬৭ শতাংশ

দেশে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের চাহিদা ও ঝোঁক ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেক্ষেত্রে ডাক্তারি পঠনপাঠনে আসন সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বৃদ্ধিও প্রয়োজন। তবে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে যে রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে, সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিগত কয়েক বছরে দেশে ডাক্তারি উচ্চশিক্ষায় অগ্রগতির রূপরেখা। দেখা যাচ্ছে, বিগত আট বছরে ভারতে মোট ২৬১টি নতুন কলেজ খোলা হয়েছে। এবং ২০১৪ সাল থেকে মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ৬৭ শতাংশ।

বর্তমানে ডাক্তারি উচ্চশিক্ষায় আগ্রহ বাড়ছে পড়ুয়াদের। সেইমতো ভারতে ডাক্তারি চর্চার সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি একটি অন্যতম ভালো দিক। সমীক্ষায় জানা গেছে, বিগত বছরগুলিতে মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে ডাক্তারির আসন সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে ভারতে এমবিবিএস আসন সংখ্যা প্রায় ৯৬ হাজার ৭৭ টি। সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে ডাক্তারি আসন সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় আরও বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণের সুযোগ যে বৃদ্ধি পাচ্ছে তা বলাই বাহুল্য। সূত্রের খবর, সেই লক্ষ্যকে মাথায় রেখে সরকারি কলেজে আরও আসন সংখ্যা বৃদ্ধির প্রচেষ্টা চলছে প্রায় ১০ হাজার।

আরও পড়ুনঃ SSC CGL পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করুন

আগামী দিনের স্বাস্থ্য সচেতনতার কথা চিন্তা করে বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নতিতে নেওয়া হচ্ছে একাধিক পদক্ষেপ। ইতিমধ্যেই ভারতের প্রায় ১৬টি রাজ্যে ৫৮টি ডাক্তারি কলেজের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা যোজনার অধীনে স্বাস্থ্য মন্ত্রক ২২টি নতুন অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স তৈরি করেছে। কলেজগুলির উন্নতিতে গৃহীত হচ্ছে নানাবিধ ব্যবস্থা। স্বচ্ছতা ও পরিকাঠামোগত উন্নয়নের জন্যও নেওয়া হচ্ছে পদক্ষেপ। চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরীক্ষায় জাতীয় বোর্ড আটটি নতুন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা সংযোজন করেছে।

অনুষ্ঠিত হতে চলা পরীক্ষাগুলি যাতে সঠিকভাবে পরিচালিত হয় সেদিকেও রাখা হচ্ছে নজর। এছাড়া ডাক্তারি পঠনপাঠনে বেশ কিছু নিয়ম সংযোজন ও বাতিল করা হয়েছে। বর্তমানে ভারতে ৭৫টি মেডিকেল কলেজকে আরও উন্নত করার পরিকল্পনায় গৃহীত হয়েছে প্রকল্প। একই সাথে আগামী দুই বছরের মধ্যে আরও ৬০টি নতুন কলেজ খোলার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে। অতএব বোঝাই যাচ্ছে আগামী দিনে ডাক্তারি পঠনপাঠনের উন্নতিতে সমস্ত দিক থেকেই পরিকাঠামোগত উন্নয়নের পথে হাঁটছে কেন্দ্রীয় সরকার।