পড়ুয়াদের নিরাপত্তার সুনিশ্চিতকরণে গঠিত হবে স্কুলভিত্তিক নিরাপত্তা কমিটি, জারি সাত দফা নির্দেশিকা

পড়ুয়াদের নিরাপত্তার সুনিশ্চিতকরণে গঠিত হবে স্কুলভিত্তিক নিরাপত্তা কমিটি

রাজ্যের স্কুলগুলির নিরাপত্তার সুনিশ্চিতকরণে চিন্তাভাবনা করছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। সেই অনুযায়ী স্কুলভিত্তিক নিরাপত্তা কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিদ্যালয়গুলির এই নিরাপত্তা কমিটিতে থাকবেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বা চেয়ারম্যান, একজন মহিলা শিক্ষিকা (বিশেষ কারণ বশত সেই জায়গায় পুরুষ শিক্ষক থাকতে পারবেন), এছাড়াও থাকবেন স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, দুজন অভিভাবক তরফের সদস্য, পুলিশ প্রশাসন ও পরিবার ও সমাজ কল্যাণ দফতরের দুজন প্রতিনিধি। এই ‘স্টুডেন্ট অ্যান্ড সিকিউরিটি মনিটরিং কমিটির’ বিষয়টি নিশ্চিত করতে স্কুলে স্কুলে জারি করা হয়েছে সাত দফা নির্দেশিকা।

রাজ্যের বিদ্যালয়গুলির নিরাপত্তার দিকটি বিবেচনা করে দেখছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। সেই অনুযায়ী ‘স্টুডেন্ট অ্যান্ড সিকিউরিটি মনিটরিং কমিটি’ গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই কমিটির তরফে বিদ্যালয়গুলির জন্য বেশ কিছু কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। যেমন-

১) ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়ার মতো রোগ প্রতিরোধের ব্যবস্থা করবে কমিটি। সেই উদ্দেশ্যে ক্যাম্পাস পরিষ্কার রাখা, জল জমতে না দেওয়া, ও রোগ যাতে ছড়িয়ে না পড়ে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখবে।
২) স্কুল চত্ত্বরে সিসিটিভি নজরদারির বন্দোবস্ত করবে।
৩) ছাত্রছাত্রীদের জন্য ব্যবহৃত পানীয় জল নিরাপদ কিনা ও প্রয়োজনে সেই জলের নমুনা সংগ্রহ করে জনস্বাস্থ্য ও কারিগরি দফতরের ল্যাবরেটরিতে পাঠাবে কমিটি।

FB Joinআরও পড়ুনঃ প্রকাশ পেল সেট পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ড

৪) ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক, ও বহিরাগতদের জন্য পৃথক শৌচাগারের ব্যবস্থা করতে হবে।
৫) রাজ্য সরকারের ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ এর মতো সতর্কতামুলক প্রচার চালাতে হবে ও প্রয়োজনে পোস্টার ইত্যাদির মাধ্যমে সতর্ক করতে হবে মানুষকে।
৬) বিদ্যালয়ে উপস্থিত বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতিগুলি থেকে যাতে শর্ট সার্কিট না হয়, কোনোও সিলিং ফ্যান যাতে ভেঙে না পড়ে, সেদিকে নজর রাখতে হবে ও প্রয়োজন সাপেক্ষে নির্দিষ্ট সময় অন্তর সেগুলি পরীক্ষা করাতে হবে।
৭) বিদ্যালয়ে থাকা কোনোও বৈদ্যুতিক যন্ত্রের দ্বারা যাতে কোনও শিক্ষার্থীর ক্ষতি না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে কমিটিকে।

মধ্যশিক্ষা পর্ষদের তরফে রাজ্যের বিদ্যালয়গুলিতে পঠনপাঠনের সাথে যুক্ত ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থে এই নিরাপত্তা কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্তে খুশি শিক্ষক-শিক্ষিকা থেকে অভিভাবকরা। তাঁদের দাবি, এই নিরাপত্তা কমিটি গঠিত হওয়ায় পড়ুয়াদের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে নিশ্চিন্ত হতে পারবেন অভিভাবকরা।