কলকাতার রাস্তায় আমরণ অনশন টেট উত্তীর্ণদের, অথচ সরকারের হুঁশ নেই

কলকাতার রাস্তায় আমরণ অনশন টেট উত্তীর্ণদের

টেট উত্তীর্ণ অথচ দুর্নীতির কারনে বঞ্চিত চাকরিপ্রার্থীদের আন্দোলনে জেরবার রাজধানীর রাজপথ। ২০১৪ সালের টেট উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল পরিস্থিতি কলকাতায় সল্টলেকের প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ সংলগ্ন এলাকায়। ইন্টারভিউ ছাড়াই অতি শীঘ্রই তাদের চাকরি দিতে হবে এই দাবিতে অনড় ২০১৪ সালে টের উত্তীর্ণ প্রার্থীরা। আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাদের কথা দিয়েছিলেন সমস্ত টেট উত্তীর্ণ প্রার্থীদের চাকরি দেওয়া হবে। তারা দ্বিতীয়বার কোনোরূপ ইন্টারভিউ দিতে অনিচ্ছুক।

অন্যদিকে নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি গৌতম পালের বক্তব্য, আইন মেনে চাকরিপ্রার্থীদের নিয়োগ পত্র দেওয়া হবে। মোট ১১ হাজার শূন্যপদে নিয়োগ হবে। দুর্নীতির রুখতে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া চলাকালীন ভিডিওগ্রাফি করা হবে এবং পরবর্তীতে ও.এম.আর সিটও প্রকাশ করা হবে।

আরও পড়ুনঃ
প্রাইমারি টেট বাংলা প্রাকটিস সেট
প্রাইমারি টেট পেডাগজি প্রাকটিস সেট
প্রাইমারি টেট পরিবেশ বিদ্যা প্রাকটিস সেট

এদিন ওই চত্বরে চাকরিপ্রার্থীরা নির্জলা আমরণ অনশন শুরু করেন। যতদিন না পর্যন্ত পর্ষদের তরফে সরাসরি তাদের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেওয়া হচ্ছে, ততদিন এই অনশন এবং আন্দোলন চলবে। ২০১৪ সালে টেট উত্তীর্ণ এই আন্দোলনকারী চাকরিপ্রার্থীদের বক্তব্য, ২০১৪ সাল এবং বর্তমান শিক্ষাবর্ষের মধ্যে সিলেবাসের আকাশ-পাতাল পার্থক্য রয়েছে, এই পরিস্থিতিতে তাদের পুনরায় প্রস্তুতি শুরু করা এবং চূড়ান্ত পর্যায়ের প্রস্তুতি নিয়ে পরীক্ষা পাশ করা একপ্রকার অসম্ভব কাজ।

পর্ষদের সভাপতি গৌতম পাল এই আন্দোলনের মধ্যে রাজনৈতিক ইন্ধনের গন্ধ পাচ্ছেন এবং তিনি তার বক্তব্যে তা স্পষ্টও করেছেন। পুলিশ মাইকিং করে আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভ তুলে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন। কিন্তু পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হয়নি। অনশন সহ চাকরিপ্রার্থীদের আন্দোলন এখনো চলছে।