এই ব্যবসা করে মাসে ৩০ হাজার টাকা রোজগার করুন, শুরুতে বিনিয়োগ মাত্র ১০ হাজার

এই ব্যবসা করে মাসে ৩০ হাজার টাকা রোজগার করুন

অনেকদিন ধরে পড়াশোনা করছেন, কিন্তু চাকরি এখনও হলো না! হতাশায় ভুগছেন? চাকরি না হলে কি করবেন? একদম হতাশা নয়। হতাশা মানুষকে শেষ করে দেয়। নতুন কিছু ভাবুন। নিজে রোজগার করুন। চাকরি না করে মাসে ৩০ হাজার রোজগার

‘বিকল্প কর্মসংস্থান’ সিরিজের নতুন একটি প্রতিবেদনে Exam Bangla ‘র সমস্ত পাঠকদের স্বাগত জানাই। আজকের এই প্রতিবেদনে নতুন একটি ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে আমরা হাজির হয়েছি। কম বিনিয়োগে প্রচুর ইনকামের সুযোগ রয়েছে। এই ব্যবসাটি আপনি ফুলটাইম কিংবা অন্য কোন কাজের সাথে পার্ট টাইম হিসাবেও করতে পারেন। ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা হলেই শুরু করতে পারবেন এই ব্যবসা। ব্যবসা শুরু করতে কম পুঁজি লাগলেও এই ব্যবসাতে ইনকাম প্রচুর। প্রতিমাসে আপনি ৩০ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার, ৬০ হাজার বা তার থেকেও বেশি রোজগার করতে পারবেন।

পপকর্ন ব্যবসা

এবার বিষয়টা খোলসা করে বলা যাক। ব্যবসাটি হলো পপকর্ন -এর ব্যবসা। আপনারা সকলেই জানেন রাস্তাঘাটে, বাজারে, শপিংমলে বিভিন্ন জায়গায় ছোট ছোট ট্রলির মাধ্যমে অনেকেই পপকর্ন বিক্রি করেন। আপনারা কি কোনদিন ভেবে দেখেছেন, এই ব্যবসা থেকে মাসে কত টাকা লাভ হতে পারে? নিশ্চয়ই দেখেননি। কারণ কোনো ব্যবসার লাভ সম্পর্কে জানা এতটা সহজ নয়। তবে আজকের এই পোস্টে পপকর্ন -এর ব্যবসা সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হবে।

পপকর্ন ব্যবসা কেন করবেন?
এই ব্যবসা করার জন্য শুরুতে সর্বোচ্চ ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ হতে পারে। তার থেকে বেশি নয়। এই ব্যবসাটি করতে কোনরূপ জায়গা প্রয়োজন হবে না। তাই ঘর ভাড়ার খরচ আপনাকে দিতে হবে না। কোনরূপ ইলেকট্রিসিটি লাগবেনা। কেবল একটি ট্রলি বা ঠেলাগাড়ি হলেই এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারবে। এই ব্যবসাটি পরিচালনা করতে একাধিক কর্মিকে কাজে লাগাতে হবে না, আপনি নিজেই এই ব্যবসাটি করতে পারবেন। এই ব্যবসাটি যেকোনো মধ্যবিত্ত বাড়ির ছেলে সহজে শুরু করতে পারবেন।

ব্যবসার প্রয়োজনীয় সরঞ্জামঃ
পপকর্ন -এর ব্যবসা করার জন্য কি কি সরঞ্জাম প্রয়োজন হবে নিচে দেওয়া হল-
১) পপকন তৈরীর মেশিন।
২) একটি ট্রলি কিংবা ঠেলাগাড়ি।
৩) জ্বালানির জন্য এলপিজি গ্যাস।
৪) ভুট্টা দানা।
৫) ঘি বা বাটার, হলুদ, সামান্য মসলা ও লবণ।
৬) প্যাকেজিং -এর জন্য পলিথিন প্যাকেট।

যারা পপকর্ন খেয়েছেন তারা সকলেই জানেন কিভাবে তৈরি করা হয়। উপরোক্ত জিনিসগুলি দিয়ে খুব সহজেই পপকন তৈরি করতে পারবেন।

পপকর্ন তৈরীর মেশিনঃ
পপকর্ন ব্যবসা করার জন্য সর্বপ্রথম প্রয়োজন পপকর্ন তৈরীর মেশিন। গোটা ভারতবর্ষ তথা বাংলাদেশের বড় বড় শহরগুলোতে পপকর্ন তৈরীর মেশিন পাবেন। এছাড়াও এই মেশিনগুলো অনলাইনের মাধ্যমে কিনে নিতে পারেন। India Mart নামক অনলাইন বাজার থেকে পপকর্ন তৈরীর মেশিন কিনতে পারবেন। মেশিনের কোয়ালিটি অনুযায়ী দাম শুরু হচ্ছে ৮ হাজার টাকা থেকে। যে মেশিন গুলিতে জ্বালানি হিসেবে এলপিজি গ্যাস ব্যবহৃত হয় সেগুলির দাম অপেক্ষাকৃত কম, এবং যে মেশিন গুলি সরাসরি বিদ্যুতে চলে সেগুলির দাম বেশি। তবে স্থায়ী দোকানের ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ চালিত মেশিন হলে ভালো। কিন্তু আপনি যদি রাস্তা ঘাটে, ‌ শপিংমলে, বিভিন্ন উৎসব অনুষ্ঠানে এই ব্যবসাটি করতে চান সেক্ষেত্রে এলপিজি গ্যাস জ্বালানি যুক্ত মেশিন আপনার পক্ষে সুবিধাজনক হবে। কারণ ঘুরে ঘুরে বিক্রি করার ক্ষেত্রে ইলেকট্রিসিটি সব জায়গায় পাওয়া যাবে না, তাই এলপিজি গ্যাস দ্বারা নিযুক্ত মেশিন গুলিতে সুবিধা হবে।

পপকন তৈরীর পদ্ধতিঃ
আজকের দিনে এমন খুব কম জনই আছেন যারা পপকর্ন তৈরি করতে জানেন না। পপকর্ন তৈরীর পদ্ধতি না জানা থাকলে ইউটিউব থেকে দেখে নিতে পারেন।
১) ঘি কিংবা বাটারে ভিজিয়ে রাখা ভুট্টার দানা গুলিকে কিছু পরিমাণ নিয়ে পপকর্ন তৈরীর মেশিনের ভিতরে দিতে হবে।
২) এবার মেশিনটির ঢাকনা বন্ধ করে জ্বালানি চালু করতে হয়।
৩) জ্বালানি দেওয়ার কিছুক্ষণ পর থেকেই ভুট্টার দানা গুলি ফুটতে শুরু করে। ধীরে ধীরে সবগুলি দানা পপকর্নে পরিণত হয়।
৪) এবার মেশিন থেকে নামিয়ে সামান্য মশলা ও লবণ দিয়ে নির্দিষ্ট পরিমান মত প্যাকেজিং করে বিক্রি শুরু করতে পারেন।

পপকর্ন ব্যবসায় লাভঃ
এই ব্যবসায় প্রচুর লাভ। ব্যবসাটি না শুরু করা পর্যন্ত বুঝতেই পারবেন না এই ব্যবসায় কত লাভ রয়েছে। বাজারের চাহিদা অনুযায়ী পপকর্ন -এর প্যাকেট গুলির দাম ১০ টাকা, ১৫ টাকা কিংবা ২০ টাকা রাখা যেতে পারে। দাম বাড়লে পপকর্নের পরিমাণ বাড়াতে হবে। প্রতিটি ১০ টাকার প্যাকেটে সর্বোচ্চ খরচ হবে ৪- ৫ টাকা তার বেশি নয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে খরচের পরিমাণ আরও কমে যাবে। যদি আপনি বিভিন্ন জনবহুল স্থানে, স্কুল কিংবা কলেজের কাছে, বা শপিং মলের সামনে এই ব্যবসাটি শুরু করেন প্রতিদিন আপনি কয়েকশো প্যাকেট পপকর্ন বিক্রি করতে পারবেন। এবং প্রতিমাসে এই ব্যবসা থেকে লাভ করতে পারবেন কমপক্ষে ২৫ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা কিংবা আরও বেশি।

প্রসঙ্গত, শুধু বাজারে দাঁড়িয়ে পপকর্ন বিক্রি নয়, বিভিন্ন পার্টি অনুষ্ঠানে, বিয়ে বাড়ি কিংবা ব্যক্তিগত কোনো অনুষ্ঠানে ডাক পেতে পারেন। এইসব ক্ষেত্রে একদিনের জন্য আপনাকে পপকর্ন -এর স্টল দিতে হবে। এবং পুরো অনুষ্ঠানের ওপর ভিত্তি করে আপনি মোট মূল্য পাবেন। এইসব ক্ষেত্রে লাভের পরিমাণ অনেকটা বেশি হবে।

‘বিকল্প কর্মসংস্থান’ সিরিজ টি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে, যদি এই ধরনের ব্যবসা সংক্রান্ত পোস্ট পেতে চান তাহলে আমাদের ফেসবুকে ফলো করুনঃ

আরও পড়ুনঃ লাভজনক ৫ টি ব্যবসার আইডিয়া