পশ্চিমবঙ্গের চাকরি ক্ষেত্রে ভূমিপুত্র সংরক্ষণ, ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

পশ্চিমবঙ্গের চাকরি ক্ষেত্রে ভূমিপুত্র সংরক্ষণ

শেষ পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের চাকরিপ্রার্থীদের দাবি পূরণ হতে চলেছে। কারন বাংলায় সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে বাংলা ভাষা জানা বাধ্যতামূলক, এমনটা ঘোষণা করলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বহু দিন থেকে এরাজ্যের চাকরিপ্রার্থীদের দাবি ছিল যে চাকরি ক্ষেত্রে যেন রাজ্যের ছেলে- মেয়েদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। কারন গত কয়েক বছর ধরে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে অবাঙালি অফিসার নিযুক্ত হচ্ছেন। ফলে যেমন সাধারণ মানুষকে পরিষেবা দিতে অসুবিধা হচ্ছে, তেমন রাজ্যের ছেলে- মেয়েরা চাকরিক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে পড়ছে। তবে এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণায় আশা খুঁজে পাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের চাকরিপ্রার্থীরা।

মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, রাজ্যের সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে স্থানীয়দের অগ্রাধিকার দিতে হবে। এ বিষয়ে মুখ্য সচিবকে খতিয়ে দেখার জন্য নির্দেশও দেন তিনি। প্রায়শই দেখা যায় প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে কর্মরত বহু আধিকারিক বাংলা ভাষা জানেন না। ফলস্বরূপ সেই সমস্ত আধিকারিকরা স্থানীয়দের সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে, তাদের মতামত জানতে ও বুঝতে পরিস্থিতি খারাপ হয়ে যায়। তাই মুখ্যমন্ত্রীর জানিয়েছেন, রাজ্যের প্রতিটি কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে সেই রাজ্যের লোকেরা যেন নিয়োগে অগ্রাধিকার পায়। অন্যান্য রাজ্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি সব রাজ্যের জন্য বলছি যেন কর্মসংস্থানের জন্য সেই রাজ্যের লোকেরা আগে চাকরিরসুযোগ পায়’।

আরও পড়ুনঃ
রাজ্যে ব্লক ভলেন্টিয়ার নিয়োগ চলছে
আশা কর্মী পদে আবেদন করুন
এইট পাশে গ্রূপ-ডি নিয়োগ

বাংলা হল বাংলা রাজ্যের জন্য। বাংলায় যারা বাস করেন তিনি রাজবংশী হতে পারেন, কামতাপুরী কিংবা হিন্দিভাষী যে কেউ হতে পারেন তাতে মুখ্যমন্ত্রী কোনো আপত্তি নেই শুধুমাত্র প্রশাসনিক সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে বাংলা ভাষা তাকে জানতেই হবে। আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় রাজ্যের সার্ভিস কমিশনে চাকরির বেলায় বেশি নম্বর নিয়ে আসা অন্য রাজ্যর কোন ব্যাক্তি চাকরি পেয়ে যায়। সেক্ষেত্রে স্থানীয়রা সেই চাকরি থেকে বঞ্চিত হয়। সেই ব্যক্তিটি যখন আবার কোনো সরকারি দপ্তরে যান তখন তার স্থানীয় ভাষা না জানার কারণে অসুবিধার তৈরি হবে। তাই পরবর্তী পরিস্থিতির কথা ভেবে যাতে এই রকম সমস্যার সম্মুখীন না হতে হয় সেই জন্য রাজ্যের মুখ্য সচিবকে এ বিষয়ে নজরদারি করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

সব মিলিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণা কার্যকরী হলে পশ্চিমবঙ্গের চাকরিপ্রার্থীদের সুবিধা হবে। রাজ্যের প্রতিটি সরকারি দপ্তরে এরাজ্যের ভুমি পুত্ররা স্থান পাবে। এমনকি পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া অন্য অনেক রাজ্যে চাকরি ক্ষেত্রে সেই রাজ্যের ভুমি পুত্র সংরক্ষণের নিয়ম রয়েছে। তবে পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে এই সিদ্ধান্ত নিতে এত দেরি হলো কেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যের বহু চাকরিপ্রার্থীরা।